শান্তি পরিষদে প্রদত্ত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ভাষণ

সম্পাদকীয় মন্তব্য: বঙ্গবন্ধুর অনেক ভাষণ, লেখা বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে আছে যা অতীব দুস্প্রাপ্য। যেমন, এই বক্তৃতাটি। ১৯৫২ সালে শান্তি পরিষদ সম্মেলনে যোগ দেওয়ার জন্য উনি চিন গিয়েছিলেন। এই চিন সফর তাঁর মননে প্রভাব ফেলেছিল। শান্তি পরিষদ সম্মেলনে তিনি এই বক্তৃতাটি দিয়েছিলেন যা এর আগে পাওয়া যায় নি। এই বক্তৃতাটি বঙ্গবন্ধুর

বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ড : জাতীয় চেতনা নির্মূলের চেষ্টা ও আজকের বাংলাদেশ।। গৌরাঙ্গ নন্দী

গৌরাঙ্গ নন্দী বাঙালির সবচেয়ে গৌরবজনক অধ্যায় হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলা ভাষাভিত্তিক দেশ হিসেবে বাংলাদেশ-এর আবির্ভাব। উনিশশ’ একাত্তরে দীর্ঘ ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের পর ১৬ ডিসেম্বর মুক্তিবাহিনী ও মিত্র বাহিনীর সম্মিলিত কমকাণ্ডের কাছে দখলদার পাকিস্তানি বাহিনী আত্মসমর্পণ করে। যুদ্ধে বিজয়ের ঠিক আগে, পাকিস্তানি সেনাবাহিনী ও তাদের এ  দেশীয় দোসর – রাজাকার,